1. rana.bdpress@gmail.com : admin :
  2. admin@dailychandpurjamin.com : mazharul islam : mazharul islam
  3. rmctvnews@gmail.com : adminbd :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নিখোঁজ সংবাদ নান্দাইলে সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত প্রবীণ সাংবাদিক জালাল উদ্দীন মন্ডল খালিয়াজুরীতে সংসদ সদস্য সাজ্জাদুল হাসানের ঐচ্ছিক তহবিল থেকে অনুদান প্রদান নওগাঁয় ছেলের লাঠির আঘাতে প্রাণ গেলো বাবার নওগাঁয় নিজ বাড়ির সামনে খুন হলেন মাতব্বর নওগাঁয় ডিবি পুলিশের অভিযান ১০১ কজি গাঁজাসহ গ্রেফতার-২ ভূরুঙ্গামারীতে সিটি প্রেস ক্লাবের নবনির্বাচিত সভাপতি হলেন সাংবাদিক কাজল ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রফিকুল নেত্রকোনায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ১ টি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ পিস্তল উদ্ধার নওগাঁয় বজ্রপাতে তিন জনের মৃত্যু আমরা সবার ” সংগঠনের পক্ষ থেকে ৬০ টি পরিবারের মাঝে কৈ মাছ বিতরণ

একটি ছোট্ট ফেসবুক পোস্ট থেকে জন্ম নিতে পারে বন্ধুত্বের এক নতুন অধ্যায়

প্রতিবেদকঃ পার্থ

১৮ মে ২০২৪, একটি সন্ধ্যা যা লিপিকা ইকবাল কোনোদিন ভুলতে পারবেন না। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরে বসবাসকারী লিপিকা একটি পুরোনো ছবির দিকে তাকিয়ে তার হারানো তিন বন্ধুর কথা ভাবছিলেন। হৃদয়ের গহীনে জমে থাকা স্মৃতির কথা তুলে ধরতে তিনি “বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র” নামক ফেসবুক গ্রুপে একটি পোস্ট করেন। পোস্টের সঙ্গে ১৯৯০ সালে তোলা একটি ছবিও সংযুক্ত করেন, যেখানে লিপিকা ও তার তিন বান্ধবী—মাকসুদা খানম (টুটু), সানোয়ারা বেগম (সানী), এবং মাহমুদা খানম (সীমা) রয়েছেন।
একটি ছোট্ট পোস্টে কি এমন শক্তি থাকে যা এক মুহূর্তেই হাজারো মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নেয়?

পোস্টের ক্যাপশনে লিপিকা লেখেন, “গত ৩০ বছর ধরেই খুঁজে চলেছি আমার এই তিন বান্ধবীকে। ছবির সবচেয়ে বামে বসে আছি আমি (লিপি)। আমার পাশে টুটু, তার পরে সীমা, আর সবার শেষে সানী। আমরা ১৯৯০ সালে তেজগাঁও কলেজে বিএ পাস কোর্সে ভর্তি হই।”

লিপিকার এই আবেগময় পোস্টটি খুব দ্রুতই মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নেয়। পোস্টের প্রথম ১০ মিনিটের মধ্যেই মাকসুদা খানম (টুটু)-র সন্ধান পাওয়া যায়, এবং রাত ১০:৩০ এর মধ্যে সানোয়ারা বেগম (সানী)-র খোঁজ মেলে। অবশেষে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মাহমুদা খানম (সীমা)-কেও খুঁজে পাওয়া যায় এবং তাঁদের সঙ্গে মুঠোফোনে এবং ভিডিও কলের মাধ্যমে যোগাযোগ করানো হয়।
কিভাবে একটি সাধারণ ফেসবুক গ্রুপ একটি হারানো বন্ধুত্বকে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে?

এই ঘটনার পেছনে প্রধান ভূমিকা পালন করেছে “বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র” প্ল্যাটফর্ম। তাদের কর্ণধার গিরিধর দে বলেন, “আমরা লিপিকার তথ্য যাচাই-বাছাই করে প্রচার শুরু করি। পোস্টটি প্রচারের পরপরই টুটু এবং সানীকে খুঁজে পাই। এরপর সীমাকেও খুঁজে পাই। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করানো হয়।”
আপনার যদি ৩০ বছরের স্বপ্ন ৩০ মিনিটে সত্যি হয়ে যেত, তখন কেমন লাগতো?

লিপিকা ইকবাল বলেন, “আমিতো ভাবতেও পারিনি। আল্লাহ আমার মনের কথা শুনতে পেরেছেন আলহামদুলিল্লাহ। এই পেজ না থাকলে তা কি সম্ভব হতো! ৩০ বছরের একটি স্বপ্ন ৩০ মিনিটেই সত্যি হলো।” তার চোখে জল, কণ্ঠে কাঁপুনি—এ যেন এক স্বপ্নপুরীর বাস্তব রূপ।
বন্ধুত্বের সম্পর্ক কি কখনো হারায়?

তৃতীয় বন্ধু সানী বলেন, “বন্ধুত্বের এই সম্পর্ক কোনোদিন হারায় না। আবারও একসঙ্গে হতে পেরে খুব ভালো লাগছে।” সীমা তাদের পুনর্মিলনকে জীবনের সবচেয়ে বড় উপহার হিসেবে বর্ণনা করেছেন। এই পুনর্মিলনের আনন্দে তাঁরাও আবেগে আপ্লুত।
কিভাবে একটি সাধারণ পোস্ট হাজার হাজার মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে যায়?

এই ঘটনার পর হাজার হাজার মানুষ পোস্টটি শেয়ার করেন এবং শুভকামনা জানান। “বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র” প্ল্যাটফর্মের কর্ণধার গিরিধর দে বলেন, “আমরা ইতঃপূর্বেও এমন প্রায় ৪০টি পরিবার, স্বজন কিংবা বন্ধুদের পুনর্মিলন করেছি, যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাখো মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে। এবারের অভিজ্ঞতাটা ছিল বিশেষভাবে হৃদয়স্পর্শী।”
এই ঘটনা আমাদের শিখিয়েছে যে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সঠিকভাবে ব্যবহার করলে তা কেবল বিনোদন বা তথ্য বিনিময়ের মাধ্যম নয়, বরং তা মানুষের জীবনে গভীর এবং স্থায়ী পরিবর্তন আনতে পারে। এটি আমাদের মানবিকতার সত্তাকে জাগ্রত করে, বন্ধুত্বের গুরুত্বকে আরও বেশি করে উপলব্ধি করায়। বন্ধুত্ব অমর হোক, ভালোবাসা ছড়িয়ে পড়ুক প্রতিটি হৃদয়ে।

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 rmcnewsbd
Theme Developed BY Desig Host BD