1. rana.bdpress@gmail.com : admin :
  2. admin@dailychandpurjamin.com : mazharul islam : mazharul islam
  3. rmctvnews@gmail.com : adminbd :
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

চীনের মহাপ্রাচীরের ঐতিহাসিক ঘটনা

পৃথিবীর ইতিহাসের এক অনন্যসাধারণ নির্মাণশৈলী চীনের মহাপ্রচীর। এ মহাপ্রাচীর নির্মাণের দায়িত্বে ছিলেন চীনের সম্রাট কিন শিং হোয়াং এর সেনাপতি জেনারেল মিং তিয়ান। ১৩৬৮ সালে চীনের মিং রাজবংশের শাসনামলে এ মহাপ্রাচীর নির্মাণ শুরু হয় এবং ১৬৪৪ সালে নির্মাণ কাজ শেষ হয়।

মৃলত দৃর্ধর্ষ মোঙ্গলীদের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য চীনের মহাপ্রাচীর নির্মাণ করা হয়। এ মহাপ্রাচীর লম্বায় ৫ হাজার কিলোমিটারের ও বেশী। চীনা ভাষায় এ প্রাচীরের নাম ওয়ান লি কোয়াং কেং। যার অর্থ ১০ হাজার লম্বা প্রাচীর। এটি বেইজিংয়ের উওর ও উওর- পশ্চিমাঞ্চল নিয়ে চীনের উওরাঞ্চলীয় পার্বত্য এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।

ইট, পাথর, মাটি দিয়ে নির্মিত এ প্রাচীরের দৈর্ঘ্য প্রায় ২৪০০ কিলোমিটার এবং ১৫ থেকে ৩০ ফুট চওড়া ও ২৫ ফুট উঁচু। সত্যিকার ভাবে চীনের মহাপ্রাচীর নির্মাণ শুরু হয়েছিল সপ্তম ও অষ্টম শতকের মাঝামাঝি সময়ে। কালের পরিক্রমায় চীনের মহাপ্রাচীর নির্মাণ কাজ সম্প্রসারিত হয়ে আজকের অবস্থানে এসেছে। কথিত আছে যে, চীনের মহাপ্রাচীর নির্মাণ বাধ্যতামূলক শ্রম নিয়োগ করা হয়।

মহাপ্রাচীর নির্মাণ করতে মিং সম্রাটরা প্রায় ২০০ বছর চেষ্টা চালান। মহাপ্রাচীরকে বর্তমান রুপ দেন মিং শাসকেরা। এ মহাপ্রাচীর নির্মাণ করতে প্রায় ৯ বছর সময় লেগেছিল। এটি পাহাড় পর্বত, উপত্যকা দিয়ে উঁচু নিচু হয়ে পূর্ব থেকে পশ্চিমে বিস্তৃত। এ মহাপ্রাচীর চীনের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে কালের সাক্ষী হয়ে আছে।

বিশ্বের নির্মাণশিল্পে এ মহা প্রাচীরের স্থাপত্য কারুকাজ এক অপার বিস্ময়। বিশালাকার এ মহাপ্রাচীরের পুরো ছবি তোলা অসম্ভব। এবং চীনের মহাপ্রাচীরের পাথর পরপর সাজালে সমগ্র পৃথিবী ঘিরে ফেলা যাবে। উল্লেখ্য চীনের এ মহাপ্রাচীর পৃথিবীর সপ্তাশ্চর্যের একটি।

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 rmcnewsbd
Theme Developed BY Desig Host BD