1. rana.bdpress@gmail.com : admin :
  2. admin@dailychandpurjamin.com : mazharul islam : mazharul islam
  3. rmctvnews@gmail.com : adminbd :
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাকেরগঞ্জ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন “গ্রীন মোহনগঞ্জ” এর সার্বিক সফলতা ও পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন জনাব সাজ্জাদুল হাসান এমপি। খালিয়াজুরীতে বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধ লাঠির আঘাতে কৃষকের মৃত্যু নেত্রকোনা ডেভেলপমেন্ট ফোরামের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত ঈদের দিন পাহাড়ে বেড়াতে গিয়ে ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত মদন উপজেলা গোবিন্দশ্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ২০১৯ ব্যাচের ইফতার ও দোয়া মাহফিল বরগুনায় স্বপ্নযাত্রী একতা ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ঈদ উপহার বিতরণ করলেন সাজ্জাদুল হাসান এমপি ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন চেয়ারম্যান কাইয়ুম খান ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানালেন রাশেদুল হাসান রাসেল

শাল্লায় প্রকল্প, বাস্তবায়ন না করেই টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের আনন্দপুর গ্রামে হতদরিদ্র কর্মসুচি কর্মসংস্থানে ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে মহিলা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। প্রকল্পে দুটি অংশের জন্য বরাদ্দ উল্লেখ থাকলেও একটি অংশের কথা জানেন না স্থানীয়রা । এমনকি প্রকল্পে উল্লেখ করা কাজল রানী দাসও জানে না নিজের বরাদ্দের কথা। কাগজে কলমে কাজল রানীর বাড়ির ভিটা উঁচুকরন উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে তা করা হ্য়নি। ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে বরাদ্দ নিয়েছেন হবিবপুর ইউনিয়নের মহিলা ইউপি সদস্য জোৎস্না রানী দাস। আর তাদের সাথে আতাত রয়েছে প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বলছেন এক কথা আর প্রকল্পের সভাপতি বলছেন আরেক কথা। দুজনের বক্তব্যেই গড়মিল পাওয়া যাচ্ছে। তবে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প সভাপতি ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার যোগসাজশে এমন দুর্নীতি ও অনিয়ম চলছে বলে অভিযোগ কাজল রানীসহ এলাকাবাসীর। এছাড়া তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তারা। জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে হতদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসুচির প্রকল্পে আনন্দপুর বিশ্বম্ভর মেম্বারের বাড়ি হতে যথীন্দ্র দাসের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা পুনঃ নির্মাণ ও কাজল রানী দাসের বাড়িতে ভিটা উচু করণ বাবদ ২০২০-২১ অর্থ বছরে ৩ লাখ ছিয়াত্তর হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। এই প্রকল্পে রাস্তার কাজ আংশিক করা হলেও ভিটা উঁচু করণে মাটি ফেলানো হয়নি। তবে এই বরাদ্দটির বিল উত্তোলন আবার ২০২০-২০২১ অর্থবছরে দেখানো হয়েছে। সরেজমিনে আনন্দপুর গ্রামের কাজল রানী দাসের বাড়িতে ঘুরে দেখা যায়, এখানে কোনো মাটি ফেলানো হয়নি। তবে বিশ্বম্ভর মেম্বারের বাড়ি থেকে যতীন্দ্র দাসের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তার পুনঃ নির্মাণের কাজ কিছুটা হয়েছে। আনন্দপুর গ্রামের কাজল রানী দাসের পাশের বাসিন্দা জুয়েল দাস জানান, এই পরিবারটি আসলেই খুব গরীব। দিনাতিপাত করে সংসার চালাচ্ছেন। মাটি ফেলানোর বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাজল রানীর ভিটায় কোন মাটি ফেলা হয়নি। বরাদ্দের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এই বিষয়ে কিছুই জানি না। তবে মহিলা ইউপি সদস্য জ্যোৎস্না রানী দাস বলেন, কাজল রানীকে একটি ঘর দেয়ার কথা ছিল। ঘরটি না হওয়ায় তার বাড়িতে মাটি ফেলানো হয়নি। প্রকল্পের বরাদ্দ হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থ বছরে আর ঘর এসেছে ২০২১ সালে এটার সাথে বরাদ্দের কি সম্পর্ক জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার ভুল হয়েছে। আমি এখন মাটি ফেলানো ব্যবস্থা করে দেব। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা একেএম ফজলুল করিম বলেন, এই প্রকল্পের কাজ করানো হয়েছে সাবেক কর্মকর্তা আজিজুর রহমানের মাধ্যমে। তিনি আরো জানান, রাস্তার কাজে সকল টাকা খরচ হওয়ায় কাজল রানীর বাড়িতে কাজ করা সম্ভব হয়নি। তবে ভুয়া প্রকল্প দেখানো হল কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটাকে ভুয়া বলা যাবে না। রাস্তার কাজ করে বরাদ্দকৃত টাকা শেষ হয়ে গেছে। এজন্য বাড়ির মাটি ভরাটের কাজ করা সম্ভব হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মোক্তাদির হোসেন বলেন, এলাকার কেউ যদি অভিযোগ দেয় তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 rmcnewsbd
Theme Developed BY Desig Host BD