1. rana.bdpress@gmail.com : admin :
  2. admin@dailychandpurjamin.com : mazharul islam : mazharul islam
  3. rmctvnews@gmail.com : adminbd :
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
একটি ছোট্ট ফেসবুক পোস্ট থেকে জন্ম নিতে পারে বন্ধুত্বের এক নতুন অধ্যায় আহত গ্রামবাসীদের পাশে এমপি সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্ত্তী পণ্যবাহী ও গণপরিবহণে চাঁদাবাজির সময় হাতেনাতে ৩৩জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫ শ্রীপুরে পিস্তল-গুলি-ইয়াবাসহ হত্যা মামলার আসামী গ্রেপ্তার আমি মানুষের পাশে ছিলাম, আছি ও থাকবো: চেয়ারম্যান প্রার্থী পলাশ পলাশকেই চায় নওগাঁর রাণীনগর উপজেলাবাসী শ্রীপুরে জামিল হাসান কালিয়াকৈরে সেলিম আজাদ চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে আ.লীগের দুই প্রার্থীর মধ্যে ভোটের তুমুল লড়াই নেত্রকোনায়”নো হেলমেট নো ফুয়েল “এর অভিযান শুরু ভৈরবের র‍্যাবের হাতে আটক নান্দাইলের হত্যা মামলার নারী আসামির মৃত্যু

শাল্লায় বিদ্যালয়ের জায়গা দখলকারীর নেতৃত্বে সরকারি কাজে বাধা

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা বাহাড়া ইউনিয়নের
১ নং ওয়ার্ডের আঙ্গারুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিশুদের যাতায়াতের রাস্তায় একটি ছোট বস্ক কালভার্ট নির্মাণ করছে বাহাড়া ইউপি পরিষদ। কাজ ও শুরু হয়েছে হঠাৎ আঙ্গারুয়া গ্রামের কিছু লোকজন কাজ বন্ধ রাখতে বাধা দেন। পরে শুরু হয় নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেনের নিকট পাল্টা পাল্টি লিখিত অভিযোগ। আঙ্গারুয়া গ্রামের অভিযোগে বিদ্যালয়ের সভাপতি পিযুষ দাসকে দায়ী করেন ও নওয়াগাঁওয়ের পানি কেন আঙ্গারুয়া গ্রামের দিকে যাবে সেই কারণে কালভার্ট নির্মাণ বন্ধের আবেদন করছে।

অন্যদিকে আবার নওয়াগাঁও গ্রামবাসী ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার বিষয়ে অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগে আবার বিদ্যালয়ের সভাপতিকে উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডে ভুমিকা রাখায় প্রশংসা করা হয়েছে এবং কাজটি দ্রুত শেষ করার জন্য নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এই পাল্টাপাল্টি অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার বিকালে নির্বাহী কর্মকর্তা ও ইউপি চেয়ারম্যান বিধান চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং উপজেলা চেয়ারম্যান আল আমিন চৌধুরীর সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে বিষয় নিষ্পত্তি করা হবে বলে সবাইকে জানিয়ে দেন।
এদিকে আঙ্গারুয়া গ্রামের বেশ কিছু লোকজন শুক্রবার সকালে আবার ঘটনা স্থলে এসে সাংর্ঘষিক মনোভাবে অবস্থান নেয়। সেই দৃশ্য দেখে নেওয়াগাঁও গ্রামের লোকজনের মধ্যে একটা বিভ্রান্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।
সরকারি অতিগুরুত্বপুর্ণ উন্নয়ন মূলক পানি নিস্কাসনের কাজে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে আঙ্গারুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আঙ্গারুয়া গ্রামের
কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীদের বর্ষায় যাতায়াতের জন্য দিরাই শাল্লা সড়ক হতে বিদ্যালয় পর্যন্ত মাটির রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে।
স্থানীয় প্রশাসন রাস্তাটি টেকসই ও জলাবদ্ধতা দুরিকরণের লক্ষ্যে উক্ত রাস্তায় কালভার্টের কাজ করছে এটি খুবই ভাল কাজ এতে বাধা কেন, এমন প্রশ্ন পথচারীদের।

এনিয়ে আঙ্গারুয়া গ্রামের বাসিন্দা ব্রজবাসী দাস,রঞ্জিত দাস, জানান, বিদ্যালয়ের সভাপতি পিযুষ বাবু বিদ্যালয়ের অনেক উন্নয়ন কাজ করেছেন। রাস্তার কাজ ও হচ্ছে। একটা ছোট পানির রাস্তা রাখতে বাধা দিচ্ছে আমার গ্রামের কিছু লোক। সেটি ঠিক না। তাঁরা বলেন হিংসা করে উন্নয়ন কাজ ধ্বংস করার পক্ষে আমরা নাই।
এদিকে নওয়াগাঁও গ্রামের দিলিপ দাস,দেবেশ দাস,নিপেন্দ্র দাস, সহ বেশ কয়েকজন বলেন বিদ্যালয়
পরিচালনা কমিটির নির্বাচনে পরাজিত হয়ে সভাপতি পিযুষ বাবুর উদ্যোগে বিদ্যালয়ের সার্বিক
উন্নয়নে হিংসা পরায়ন হয়ে অন্যায় ভাবে সরকারি রাস্তায়,সরকারি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন ও সরকারের উন্নয়ন কাজে বাধা দিয়েছে আঙ্গারুয়া গ্রামের কিছু লোকজন। তাঁরা বলেন যে ব্যক্তি বিদ্যালয়ের জায়গা বহুদিন ধরে দখল করে রেখেছে তারেই নেতৃত্বে এ বাধা প্রদান। তবে তাঁরা বলেন পানি চলাচলের কালভার্টের কাজটি করা খুবই জরুরী অন্যতায় নওয়াগাঁও গ্রামবাসী জলাবদ্ধতায় বন্দী হয়ে থাকবে । বিদ্যালয়টি আঙ্গারুয়া ও নওয়াগাঁও গ্রামবাসীর মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত এবং উভয় গ্রামের ছাত্র ছাত্রী এই বিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত। গ্রাম্য প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ বলে সরকারি উন্নয়ন কাজে বাধা দিচ্ছে বলে তাঁরা জানান।

এনিয়ে কথা হয় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি পিযুষ দাসের সাথে, তিনি বলেন প্রশাসন প্রয়োজন মনে করেই বিদ্যালয়ের রাস্তায় একটি ছোট কালভার্ট নির্মাণ করছেন। কিন্তু আঙ্গারুয়া গ্রামের কিছু লোক কাজে বাধা দিচ্ছে। তাঁদের দাবী নওয়াগাঁও গ্রামের পানি না কি তাদের গ্রামের দিকে চলে যাবে। তারা নওয়াগাঁও
গ্রামের পানি তাদের এদিকে নামতে দিবেনা।
অন্যদিকে নওয়াগাঁও গ্রামবাসী বলছে কালভার্ট না হলে তারা জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত হয়ে যাবে । একপক্ষ চাইছে কাজ বাতিল হোক অন্য পক্ষ চাইছে সরকারি কাজটি বিদ্যালয় উন্নয়নের সার্থে করা হোক এই নিয়ে দন্ধ।
তিনি জানান সরকারি কাজ সব সময় আসেনা। রাস্তা রক্ষা ও কোমলমতি শিশুদের বিদ্যালয়ের যাতায়াতের জন্য কালভার্ট টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন দুঃখ জনক বিষয় হলো আজ যার নেতৃত্বে আঙ্গারুয়া গ্রামের কিছু লোকজন এই উন্নয়ন কাজে বাধা দিচ্ছে সেই দীপক চন্দ্র দাস পিতা মৃত অনিল দাস দীর্ঘ দিন যাবত এই বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে আছে। আমি সভাপতি হয়ে এই জায়গা উদ্ধারের চেষ্টা করায় ওরা এসব করছে। সরকারি উন্নয়নে বাধা এবং বিদ্যালয়ের উন্নয়নের সার্থে প্রয়োজনে আমি আইনের আশ্রয় নিতে ও পিছু হটবো না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেন অবশ্য বলছেন, এলজিএসপি প্রকল্প বাস্তবায়ন উপজেলা কমিটি সব কিছু যাচাই করে প্রয়োজন আছে বলেই এই কালভার্টটি দিয়েছে। এখন এই কাজ নিয়ে দুই গ্রামের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। সার্বিক বিবেচনা করে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 rmcnewsbd
Theme Developed BY Desig Host BD