1. rana.bdpress@gmail.com : admin :
  2. admin@dailychandpurjamin.com : mazharul islam : mazharul islam
  3. rmctvnews@gmail.com : adminbd :
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লামায় জীনামেজু টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট এর পক্ষ থেকে একুশে পদক প্রাপ্ত ড. জিনবোধি মহাথেরকে গনসংবর্ধনা প্রদান বান্দরবানের লামায় ধর্ষণের ঘটনায় পিতার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ লাখ টাকা জরিমানাবজ্জীবন পূর্ব বিরোধের জেরে স্কুল থেকে ফেরার পথে প্রধান শিক্ষকের ওপর হামলা, থানায় অভিযোগ নেত্রকোণায় ট্রাক চাপায় নারীর মৃত্যু বই মেলায় হেপি সরকারের প্রথম কাব্যগ্রন্থ “হৃদয়ের কাব্যকথা” ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশ থেকে  অবৈধ দোকান গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন ২১ফ্রেবুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একবেলা খাবারের আয়োজন মিজানুর রহমান আকন্দ টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজে অমর ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভাতফেরী ও পুষ্পস্তবক অর্পন বাকেরগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়ে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে

১২০০ বছর পর গায়েবী মসজিদে হঠাৎই আযানের সুর

নান্দাইল উপজেলার মুশুল্লী ইউনিয়নের নগরকুচুরী গ্রামে প্রায় ১২০০ বছর পুর্বের গায়েবী মসজিদেই হঠাৎই আযানের সুর শোনতে পাওয়া যায়। যেখানে দিন-দুপুরে ভয়ে কেউ যেতো না। এটিকে জ্বিনের মসজিদ তথা গায়েবী মসজিদ নামেও সবাই ডাকতো। কারন বেশী দিন হয়নি এর পারপাশ ঘিরে ছিলো বড় জঙ্গল ও জীব-জন্তুর আবাসস্থল।
স্থানীয়রা জানান, তারা তাদের বাপ-দাদার তিন-চার পুরুষেও জানেনা মসজিদটি কিভাবে স্থাপিত হয়েছিল। তবে মুখে মুখে এটি একটি গায়েবী মসজিদ নামেই পরিচিত। অনেকেই বলছে আনুমানিক ১২০০ বৎসর পূর্বে এটি স্থাপিত হয়েছে। এটিকে জ্বিনের মসজিদ তথা গায়েবী মসজিদ নামেও সবাই ডাকে। কেউ কেউ ধারনা করছেন, উক্ত গায়েবী মসজিদটি শাহ-সুলতান কমির উদ্দিন রুমী (রা) এর সময়কালে উনাদের একজনেরই ধর্মীয় উপসানালয় তথা সাধনার স্থান হিসাবে অলৌকিকভাবে স্থাপিত হয়েছিল মসজিদটি।
কথিত আছে, একজন বাক প্রতিবন্ধী লোক জঙ্গলের ভিতরে ঢুকে পড়লে মসজিদটির নির্মাণ কাজ দেখতে পায়, তখন সঙ্গে সঙ্গেই সে অসুস্থ হয়ে মারা যায়। এতে সবাই ধারনা করে যে বাক প্রতিবন্ধি লোকটি তা দেখে ফেলায় গায়েবী মসজিদের বাকী কাজ বন্ধ করে দেয় জ্বিনেরা। এরপর বহু যোগ পেরিয়ে গেলেও সেখানে যাওয়ার কেউ চিন্তা করেনা। কিন্তুু আধুনিক সভ্যতার কারনে ও জনবসতি বৃদ্ধি পাওয়া গাছ-পালা কেটে পেলে জঙ্গল পরিষ্কার করা হয়। ফলে গত মাসে হঠাৎই আযানের সুর ভেসে উঠে চারিদিকে এবং লোকজন দলে দলে আসে উক্ত মসজিদটিকে দেখতে ও জানতে।
পরে জানাগেছে, গায়েবী মসজিদ নামে পরিচিত অজানা প্রত্নতাত্নিক এই পুরাতন ভবনে নিয়মিত নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা করেছে গ্রামের মানুষ। পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে মাস খানেক ধরে উক্ত গায়েবী মসজিদটির পুন:সংস্কার সহ মসজিদের পাশেই একটি এতিমখানা (মাদ্রাসা) স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়েছে।
সরজমিন গিয়ে দেখাযায়, বহুযোগ আগে প্লেটের মতো ১ইঞ্চি পুরো ৭/৮ইঞ্চি বর্গফুটের ইট দিয়ে করা হয়েছে ৩ ফুটেরও বেশী চওড়াবিশিষ্ট প্রতিটি দেওয়াল। প্রতিটি দেওয়ালের গায়ে ইসলামী নিদর্শনের বিভিন্ন কারুশিল্প কর্ম দেখা যায়। মসজিদটির একপাশে দুটি বড় খোলা দরজা এবং অপর দুপাশে রয়েছে ছোট ছোট দুটি সুরঙ্গের মতো দরজা। উপরে ছাদ ও ভিতরের মেঝটি পাকা করা হয়নি। তবে এরচেয়ে বড় বৈশিষ্ট হলো ভিতরে প্রবেশের তিনটি রাস্তায় কোন ধরনের আলাদা ভাবে দরজা ফিটিং করার মতো কোন অবস্থান দেখতে পাওয়া যাইনি। কিন্তু বর্তমানে এলাকাবাসী মসজিদের পুরাতন দেওয়ালের সাথে ঘেষে কংক্রিটের পিলার দিয়ে উপরে টিনের ছাউনী দিয়েছে এবং মসজিদের ভিতরে ও বাইরে নামাজ আদায় করতে কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে পাকাকরন করা হয়েছে। সেখানে এখন পাচঁ ওয়াক্ত নামাজ সহ জুম্মাহর নামাজ আদায় করার পাশাপাশি খতমে তারাবীর নামাজ আদায় করা হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 rmcnewsbd
Theme Developed BY Desig Host BD